1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : বরিশাল ব্যুরো প্রধান : বরিশাল ব্যুরো প্রধান
  3. [email protected] : cmlbru :
  4. [email protected] : চট্রগ্রাম ব্যুরো প্রধান : চট্রগ্রাম ব্যুরো প্রধান
  5. [email protected] : ঢাকা ব্যুরো প্রধান : ঢাকা ব্যুরো প্রধান
  6. [email protected] : স্টাফ রিপোর্টারঃ : স্টাফ রিপোর্টারঃ
  7. [email protected] : ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান : ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান
  8. [email protected] : সম্রাট শাহ খুলনা ব্যুরো প্রধান : সম্রাট শাহ খুলনা ব্যুরো প্রধান
  9. [email protected] : ময়মনসিংহ ব্যুরো প্রধান : ময়মনসিংহ ব্যুরো প্রধান
  10. [email protected] : আমজাদ হোসেন রাজশাহী ব্যুরো প্রধান : রাজশাহী ব্যুরো প্রধান
  11. [email protected] : রংপুর ব্যুরো প্রধান : রংপুর ব্যুরো প্রধান
  12. [email protected] : রুবেল আহমেদ : রুবেল আহমেদ
বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ১১:২৩ অপরাহ্ন

বোয়ালমারীতে খামারীদের নিম্নমানের সামগ্রী বিতরণ

মুকুল বোস বোয়ালমারী, ফরিদপুর প্রতিনিধি দৈনিক শিরোমণিঃ
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী, ২০২২
মুকুল বোস প্রতিনিধি বোয়ালমারী, ফরিদপুর প্রতিনিধি দৈনিক শিরোমণিঃ ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর ও ভেটেরিনারি হাসপাতাল থেকে খামারীদের নিম্নমানের দ্রব্য সামগ্রী প্রদান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এন.এ.টি.পি-২ প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের ২৮ জন খামারীকে এসব দ্রব্যসামগ্রী প্রদান করা হয়। বুধবার (১২ জানুয়ারি) এ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নূরুল্লাহ্ মো. আহ্সান, বোয়ালমারী উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নারায়ন চন্দ্র সরকার। অনুষ্ঠানে প্রত্যেক খামারীকে ভিক্টর ফিডস নামে নিন্মমানের ২৪০ কেজি দানাদার খাদ্য, ৫ কেজি লবণ, ১ লিটার জিংক, ৪ টি কৃমিনাশক ট্যাবলেট ইত্যাদি প্রদান করা হয়। এছাড়া ব্রিফিং ভাতা বাবদ ৩শ টাকা ও পরিবহন খরচ বাবদ ৪শ টাকা প্রদান করা হয়। খামারিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়. ১২ হাজার টাকা মূল্যের দ্রব্য এবং নগদ অর্থ প্রত্যেক খামারীকে প্রদান করার কথা থাকলেও বাজার মূল্য অনুযায়ী ৮ হাজার টাকা সমমূল্যের নিম্নমানের সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে বলে একাধিক খামারী অভিযোগ করেছেন। উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের দাদপুর গ্রামের খামারি মো. আবুল বাশার বলেন, ‘আমাদের যে পরিমাণ সামগ্রী দেয়া হয়েছে তার সর্বোচ্চ বাজার মূল্য ৮ হাজার টাকা। উপজেলার কোন্দারদিয়া গ্রামের খামারি মিনা বেগম জানান, ২/৩ মাস আগে একটি মিটিংয়ে আমাদের জানানো হয়েছিল ১২ হাজার সমমূল্যের গোখাদ্য সামগ্রী দেয়া হবে। কিন্তু এখন কত টাকার সামগ্রী আমাদের দিলেন সেটা তারা আমাদেরকে জানায়নি। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. নারায়ন চন্দ্র সরকার জানান, অন্যান্য বছর খামারিদের যে পরিমাণ দ্রব্যসামগ্রী দেয়া হয় এ বছর সেই পরিমাণ দ্রব্যসামগ্রী দেয়া হয়েছে। কোনো কম দেয়া হয়নি।
Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email
24 views

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২২ দৈনিক শিরোমনি