Home লাইফ স্টাইল আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সৌন্দর্যচর্চা

আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সৌন্দর্যচর্চা

85
0
SHARE
লকডাউনে সবাই এখন নিজ নিজ ঘরে অবস্হান করছেন। বাইরের ব্যস্ততা নেই, নেই কোলাহলময় জীবন। এর উপর রমজান মাস। তাই সারাদিন খাবার ঝামেলাও নেই,সময়কে কাজে লাগিয়ে নিজেকে তৈরি করতে পারেন নিজেকে যেভাবে আপনি দেখতে চান সেই ভাবে,এরজন্য প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস আর নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর উপযুক্ত সময় এখন। সময়কে কাজে লাগিয়ে একজন অতি সাধারণ মানুষ অসাধারণ হয়ে উঠে ।আর এই মহামূল্যবান আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সৌন্দর্যচর্চার কোন বিকল্প নেই। প্রবাদে আছে-

লকডাউনে সবাই এখন নিজ নিজ ঘরে অবস্হান করছেন। বাইরের ব্যস্ততা নেই, নেই কোলাহলময় জীবন। এর উপর রমজান মাস। তাই সারাদিন খাবার ঝামেলাও নেই,সময়কে কাজে লাগিয়ে নিজেকে তৈরি করতে পারেন নিজেকে যেভাবে আপনি দেখতে চান সেই ভাবে,এরজন্য প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস আর নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর উপযুক্ত সময় এখন। সময়কে কাজে লাগিয়ে একজন অতি সাধারণ মানুষ অসাধারণ হয়ে উঠে ।আর এই মহামূল্যবান আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সৌন্দর্যচর্চার কোন বিকল্প নেই।

প্রবাদে আছে- ” সুশ্রী মুখের জয়, সবখানেতেই হয়” নিজেকে সুশ্রী মনে করলে সকল কাজে আত্মবিশ্বাস বহুগুণে বেড়ে যায়। তাই আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপ হলো সৌন্দর্যচর্চা। অপ্রিয় সত্য হলো সবাই সুন্দর হয়ে জন্মাইনা। কিন্তু আপনার প্রতিভা, যোগ্যতা, শরীরচর্চা,স্মার্টনেস, রুপচর্চা ও মানানসই পোশাক আপনাকে সুন্দর ভাবাতে বাধ্য করবে অন্যদের কাছে। কে না চাই নিজেকে সুশ্রী রাখতে বা দেখাতে? কিন্তু সবাই পারেনা,জানেনা বা বুঝেনা। যারা জানে বা পারে তাদেরকেই আমরা সুন্দর,ফ্যাশনএবল,সৌখিন ইত্যাদি বলে থাকি। কেন নিজেকে অসুন্দর ভেবে লুকিয়ে রাখেন? কিসের কমতি আপনার? আপনি হয়তো অনেক কমতি দেখাবেন। তবে আমি বলব আপনার কমতি শুধু “আত্মবিশ্বাসের”।

মনে রাখবেন – নিজেকে কুশ্রী ভাবা শুধু অন্যায় নয় বরংচ পাপও, কেননা এ পৃথিবীতে কেউ দরখাস্ত করে নিজের চেহারা তৈরি করিনি বা করেনা, সৃষ্টিকর্তা ইচ্ছা অনুযায়ী একেকজনকে একেকরকম রুপে ও বৈশিষ্ট্যে তৈরি করেন। আমরা যদি নিজেকে অসুন্দর ভাবি তাহলে সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টিতে ও সিদ্ধান্তে ভুল ধরা এবং অবমাননা করা হবে,যা মহাপাপের শামিল।

যদি বিশ্বাস করেন ” সৃষ্টিকর্তা ন্যায় বিচারক” তবে আপনাকে বিশ্বাস করতেই হবে যে-আপনার কোন দিক যদি কম থাকে তবে অন্য কোন দিক বেশী অবশ্যই আছে। আর এই বেশী থাকা বিষয়গুলো যারা খুজে বের করেন তারাই সফল,বাকিরা ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে পাড়ি জমান না ফেরার দেশে। নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখেন কারো থেকে কোন অংশে কম নন আপনি,এবং সেটা প্রমাণের জন্য চেষ্টা করুন। আপনার মনোবল, চেষ্টা ও দৃঢ় আত্মবিশ্বাসই আপনাকে নিয়ে যাবে আপনার স্বপ্নের সর্বোচ্চ চূড়ায়। নিজের প্রতি সর্বাত্মক যত্নবান হোন। নিজের অসুন্দর গুলো সৌন্দর্য চর্চার মাধ্যমে সুন্দর করে আত্মবিশ্বাসে বলিয়ান হয়ে নিজেকে অনুকরণীয় করুন।

 

 

মোঃ এ.কে.এস অনিমিথ,

কসমিটোলজিস্ট

এ.কে.এস মেকওভার এন্ড কসমিটোলজি স্কুল।

লকডাউনে সবাই এখন নিজ নিজ ঘরে অবস্হান করছেন। বাইরের ব্যস্ততা নেই, নেই কোলাহলময় জীবন। এর উপর রমজান মাস। তাই সারাদিন খাবার ঝামেলাও নেই,সময়কে কাজে লাগিয়ে নিজেকে তৈরি করতে পারেন নিজেকে যেভাবে আপনি দেখতে চান সেই ভাবে,এরজন্য প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস আর নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর উপযুক্ত সময় এখন। সময়কে কাজে লাগিয়ে একজন অতি সাধারণ মানুষ অসাধারণ হয়ে উঠে ।আর এই মহামূল্যবান আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সৌন্দর্যচর্চার কোন বিকল্প নেই।  প্রবাদে আছে- " সুশ্রী মুখের জয়, সবখানেতেই হয়" নিজেকে সুশ্রী মনে করলে সকল কাজে আত্মবিশ্বাস বহুগুণে বেড়ে যায়। তাই আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপ হলো সৌন্দর্যচর্চা। অপ্রিয় সত্য হলো সবাই সুন্দর হয়ে জন্মাইনা। কিন্তু আপনার প্রতিভা, যোগ্যতা, শরীরচর্চা,স্মার্টনেস, রুপচর্চা ও মানানসই পোশাক আপনাকে সুন্দর ভাবাতে বাধ্য করবে অন্যদের কাছে। কে না চাই নিজেকে সুশ্রী রাখতে বা দেখাতে? কিন্তু সবাই পারেনা,জানেনা বা বুঝেনা। যারা জানে বা পারে তাদেরকেই আমরা সুন্দর,ফ্যাশনএবল,সৌখিন ইত্যাদি বলে থাকি। কেন নিজেকে অসুন্দর ভেবে লুকিয়ে রাখেন? কিসের কমতি আপনার? আপনি হয়তো অনেক কমতি দেখাবেন। তবে আমি বলব আপনার কমতি শুধু "আত্মবিশ্বাসের"।  মনে রাখবেন - নিজেকে কুশ্রী ভাবা শুধু অন্যায় নয় বরংচ পাপও, কেননা এ পৃথিবীতে কেউ দরখাস্ত করে নিজের চেহারা তৈরি করিনি বা করেনা, সৃষ্টিকর্তা ইচ্ছা অনুযায়ী একেকজনকে একেকরকম রুপে ও বৈশিষ্ট্যে তৈরি করেন। আমরা যদি নিজেকে অসুন্দর ভাবি তাহলে সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টিতে ও সিদ্ধান্তে ভুল ধরা এবং অবমাননা করা হবে,যা মহাপাপের শামিল।  যদি বিশ্বাস করেন " সৃষ্টিকর্তা ন্যায় বিচারক" তবে আপনাকে বিশ্বাস করতেই হবে যে-আপনার কোন দিক যদি কম থাকে তবে অন্য কোন দিক বেশী অবশ্যই আছে। আর এই বেশী থাকা বিষয়গুলো যারা খুজে বের করেন তারাই সফল,বাকিরা ব্যর্থতার গ্লানি নিয়ে পাড়ি জমান না ফেরার দেশে। নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখেন কারো থেকে কোন অংশে কম নন আপনি,এবং সেটা প্রমাণের জন্য চেষ্টা করুন। আপনার মনোবল, চেষ্টা ও দৃঢ় আত্মবিশ্বাসই আপনাকে নিয়ে যাবে আপনার স্বপ্নের সর্বোচ্চ চূড়ায়। নিজের প্রতি সর্বাত্মক যত্নবান হোন। নিজের অসুন্দর গুলো সৌন্দর্য চর্চার মাধ্যমে সুন্দর করে আত্মবিশ্বাসে বলিয়ান হয়ে নিজেকে অনুকরণীয় করুন।    মোঃ এ.কে.এস অনিমিথ, কসমিটোলজিস্ট এ.কে.এস মেকওভার এন্ড কসমিটোলজি স্কুল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here