Home জেলার খবর ফাহিমা হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবিতে মানবন্ধন

ফাহিমা হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচারের দাবিতে মানবন্ধন

34
0
SHARE

ব্যুরো চীফ, কুমিল্লা :

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের জামমুড়া গ্রামে শশুর বাড়ি থেকে গত ২৮মে  এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওই গৃহবধূ জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার পশ্চিম জোড়কানন ইউনিয়নের সাতবাড়িয়া গ্রামের তহিদুল ইসলামের মেয়ে ও ওয়াসিম আক্রামের স্ত্রী ফাহিমা আক্তার (২১)।

জানা যায়, গত ২৮মে বৃহস্পতিবার সাড়ে ৫টার দিকে ফাহিমা আক্তারের স্বামী ওয়াসিম আক্রাম শয়ন কক্ষের দুটি দরজা বন্ধ দেখতে পেয়ে ফাহিমাকে ডাকাডাকি করতে থাকে। অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করার পরে কোন শব্দ না পেয়ে জানালার কাঁচ ভেঙ্গে দেখে তার স্ত্রী ঘরের ভূতুরের(এক ধরনের বাশেঁর তৈরী) সাথে উড়না পেঁচিয়ে ঝুলে আছে। তখন সে চিৎকার দিলে আশে পাশের লোকজন এসে সাবল দিয়ে ঘরের দরজার তালা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে দেখে ফাহিমা ঘরের ভূতুরের সাথে গলায় উড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

এতে ফাহিমার স্বামী ও স্থানীয় এলাকার লোকজন ধারনা করেন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া ঝাটি ও পারিবারিক কলহের জেরে আত্মহত্যা করতে পারে।

নিহতের পিতা মো: তহিদুল ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে কখনো আত্নহত্যা করতে পারেনা।শশুর বাড়ির লোকজন মিথ্যা ও বানোয়াট কথা বলছে।সত্যকে দামা চাপা দেয়ার চেষ্টা করছে। আমরা এর সঠিক তদন্ত ও বিচার চাই।আমার মেয়ের মৃত্যুর পরে থানায় গেলে আমার মামলা গ্রহন করে নাই। আমি এর কোন কারন খুঁজে পাইনি।আমি কুমিল্লা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে আমার মেয়ে হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের অনুরোধ জানাচ্ছি।

এসময় তিনি আরোও বলেন, আমার মেয়ের লাশ ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে আনা হলেও স্বামীর বাড়ির কোন লোকজন আসে নাই।এমনকি মেয়ের জানাযার নামাজেও কেউ উপস্থিত হয়নি।এতে বুজা যায় যে আমার মেয়েকে স্বামীর বাড়ির লোকজন হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখে। আমি আমার মেয়ের হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় আনার জোর দাবি জানাচ্ছি।

চৌদ্দগ্রাম থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল মজিদ আত্মহত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ওই গৃহবধূর আত্মহত্যার কারণ এখনও জানা যায়নি। পোস্টমর্টেম রিপোর্ট আসার পর হত্যার মূল কারন জানা যাবে।এ ঘটনায় ওইদিন রাতেই চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here