1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : বরিশাল ব্যুরো প্রধান : বরিশাল ব্যুরো প্রধান
  3. [email protected] : cmlbru :
  4. [email protected] : চট্রগ্রাম ব্যুরো প্রধান : চট্রগ্রাম ব্যুরো প্রধান
  5. [email protected] : ঢাকা ব্যুরো প্রধান : ঢাকা ব্যুরো প্রধান
  6. [email protected] : স্টাফ রিপোর্টারঃ : স্টাফ রিপোর্টারঃ
  7. [email protected] : ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান : ফরিদপুর ব্যুরো প্রধান
  8. [email protected] : সম্রাট শাহ খুলনা ব্যুরো প্রধান : সম্রাট শাহ খুলনা ব্যুরো প্রধান
  9. [email protected] : ময়মনসিংহ ব্যুরো প্রধান : ময়মনসিংহ ব্যুরো প্রধান
  10. [email protected] : আমজাদ হোসেন রাজশাহী ব্যুরো প্রধান : রাজশাহী ব্যুরো প্রধান
  11. [email protected] : রংপুর ব্যুরো প্রধান : রংপুর ব্যুরো প্রধান
  12. [email protected] : রুবেল আহমেদ : রুবেল আহমেদ
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৮:৫৬ অপরাহ্ন

হেফাজত মহাসচিব ও আ.লীগ সভাপতি জেলে

রিপোর্টার
  • আপডেট : রবিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২১

শিরোমণি  ডেস্ক  : হেফাজত ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবা ওলিয়ার রহমানকে ‘কথাবার্তা’র জন্য স্থানীয় থানায় নেওয়া হয়েছে।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাকে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা থানায় নেওয়া হয়। তবে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে নাকি অন্য কোনও কারণে থানায় আনা হয়েছে তা জানাতে রাজি হয়নি পুলিশ।

জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবা ওলিয়ার রহমান একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং সাবেক সেনাসদস্য। তিনি আলফাডাঙ্গা উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি।

ঝর্ণার মা শিরিনা বেগম জানান, রাতে ওসি সাহেব ও পুলিশের লোকজন এসে উনাকে নিয়ে গেছেন। তবে কোনও কারণ জানাননি।

থানায় নেওয়া বিষয়ে গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মোনায়েম খান জানান, ‘‘গত রাত সাড়ে ৯টার দিকে আলফাডাঙ্গা থানার ওসি আমাকে ফোনে জানান, ‘আমি আপনাদের ওদিকে আসতেছি, আমার সঙ্গে ওলিয়ার রহমানের বাড়িতে যেতে হবে।’ কিন্তু, পরে তিনি আর আমাকে নেননি। গ্রেফতার করা হয়েছে কিনা জানি না, তবে থানায় নেওয়া হয়েছে শুনেছি। এর থেকে বেশি আর কিছু জানি না। ‘

আলফাডাঙ্গা থানার ওসি মো. ওয়াহিদুজ্জামান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এমনিতেই তাকে এনেছি। গ্রেফতার, জিজ্ঞাসাবাদ কিছুই না। ঢাকা থেকে টিম আসবে, কথাবার্তার জন্য আনা হয়েছে।’

প্রসঙ্গত, গত ২১ এপ্রিল বিকালে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় তাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মো. মোনায়েম খান কেন দল থেকে ওলিয়ার রহমানকে বহিষ্কার করা হবে না মর্মে জানতে চেয়ে গত ১২ এপ্রিল কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠান। ওই নোটিশে সাত দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছিল। ১৯ এপ্রিল ওই সাত দিন পার হয়। এই প্রেক্ষাপটে ২১ এপ্রিল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক নির্বাহী সভায় ওলিয়ারকে দল থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।’

Facebook Comments
১০ views

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২২ দৈনিক শিরোমনি