কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম,এক আজন্ম বিপ্লবী

fb_img_14786168483556812মোঃআরিফুল ইসলাম: কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম,বাংলাদেশের বাম রাজনীতির এক উজ্জল নাম।একসময় ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির মাধ্যমে শুরু হওয়া এই রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন বাংলাদেশের বাম রাজনীতির প্রথম সারির দল বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টি(সিপিবি) এর সভাপতি হিসেবে।দশম এবং একাদশ সম্মেলনে পরপর দুবার সভাপতি নির্বাচিত হন এই রাজনীতিবিদ। চলুন তার ব্যাক্তিগত এবং রাজনৈতিক ইতিহাস সম্পর্কে জানা যাক

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি :
১৯৪৮ সালের ১৬ এপ্রিল, ঢাকার অদূরে সাভার
উপজেলার গেন্ডা গ্রামে জন্ম।
১৯৫৫ সালে তৎকালীন পাকিস্তান রেডিওতে
শিশুদের অনুষ্ঠান ‘খেলাঘর’-এর নিয়মিত শিল্পী
হিসেবে যোগদান।
১৯৫৭ সালে ঢাকার বিখ্যাত সেন্ট গ্রেগরি স্কুলে
ভর্তি।
১৯৬২ সালে মাত্র ১৪ বছর বয়সে রেডক্রসের
শতবার্ষিকী উপলক্ষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ ।
১৯৬৬ সালে এইচএসসির প্রথম বর্ষের ছাত্র থাকা
অবস্থাতেই ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির
সদস্য নির্বাচিত।
১৯৬৬ সালের ৭ জুন ছয় দফা বাস্তবায়নের দাবিতে
হরতাল পালনকালে গ্রেপ্তার।
১৯৬৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে
ভর্তি।
১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের পর গোপন কমিউনিস্ট
পার্টির পূর্ণ সদস্যপদ লাভ।
১৯৬৯ সালে ছাত্র ইউনিয়নের একাদশ জাতীয়
সম্মেলনে সহ-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত
১৯৭০ সালে ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক
নির্বাচিত।
১৯৭১ সালের ১৩ ডিসেম্বর ২০০ জনের গেরিলা
দল নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে মার্চ।
১৯৭২ সালে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি নির্বাচিত।
১৯৭২ সালে ডাকসু’র ভিপি নির্বাচিত।
১৯৭৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ
থেকে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হয়ে শিক্ষা
জীবনের সমাপ্তি।
১৯৭৪ সালের ১ জানুয়ারি ‘ভিয়েতনাম সংহতি মিছিল’-এ
নেতৃত্ব দান। মিছিলে পুলিশের গুলিবর্ষণ। মতিউল ও
কাদের নামে দুই ছাত্র নিহত এবং সেলিমসহ অনেক
ছাত্রছাত্রী আহত হন।
১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে
হত্যার প্রতিবাদে আন্দোলন গড়ে তুলতে
অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তার নেৃতত্বেই
বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এবং ৪ নভেম্বর ঢাকার
রাজপথে প্রথম প্রতিবাদ মিছিল সংঘটিত হয়।
১৯৭৬ সালে গ্রেপ্তার।
১৯৭৮ সালের শেষ পর্যন্ত দুই বছরের বেশি সময়
বিনা বিচারে নিরাপত্তা বন্দী হিসেবে কারারুদ্ধ
থাকেন। একই সময় প্রায় দুই মাস সেনা নিয়ন্ত্রিত
বন্দী শিবিরেও নির্যাতন ভোগ করেন।
১৯৭৯ সালে বিয়ে সম্পন্ন।
১৯৮০ সালে পার্টির তৃতীয় কংগ্রেসে
কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নির্বাচিত।
১৯৮১ সালের ১৮ মার্চ ক্ষেতমজুর সমিতির সাধারণ
সম্পাদক নির্বাচিত (ওই কমিটির সভাপতি ছিল না)।
১৯৯০ সালে রচিত ঐতিহাসিক ‘তিন জোটের
রূপরেখা’র প্রথম খসড়া তার হাতেই তৈরি।
১৯৯৩ সালে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ
সম্পাদক নির্বাচিত।
২০১২ সালে দশম সম্মেলনের মধ্য দিয়ে পার্টির
সভাপতি নির্বাচিত।
২০১৬ সালে একাদশ কংগ্রেসের মাধ্যমে পুনঃ সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটি’র সভাপতি নির্বাচিত হন।

Photo Gallery

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সাহিদুর রহমান,অফিসঃ ২২/১, তোপখানা রোড (৫ম তলা) বাংলাদেশ সচিবালয়ের উত্তর পার্শ্বে, ঢাকা-১০০০।
অফিস সেল ফোনঃ ০১৬১১-৯২০ ৮৫০, ই-মেইলঃ shiromoni67@gmail.com ,ওয়েবঃ www. Shiromoni.com

Social Widgets powered by AB-WebLog.com.