পেলের উত্তরসূরি,বেছে নিয়েছেন এমবাপ্পেকে!

অনলাইন ডেস্ক : বিশ্বকাপজয়ী ফরাসি তরুণই তাঁর কীর্তি ছুঁতে পারেন, এমনটা পেলে নিজেই বলছেন।পরশু তাঁর ২০তম জন্মদিন ছিল। উপহারে উপহারে নিশ্চয়ই ভরে গেছে কিলিয়ান এমবাপ্পের ঘর, শুভেচ্ছাবার্তায় ভরে গেছে তাঁর মোবাইলের মেসেজ বক্স। কিন্তু যে ‘উপহার’টা পেলের কাছ থেকে পেয়েছেন বিশ্বকাপজয়ী ফরাসি তরুণ, তার চেয়ে আনন্দ সম্ভবত আর কোনো উপহারে পাননি এমবাপ্পে।

বস্তুগত কিছু এমবাপ্পেকে দেননি ব্রাজিল কিংবদন্তি। ছোট্ট, সহজ একটা কথা বলেছেন শুধু। তবে যা বলেছেন, এমবাপ্পের মন ভরিয়ে দিতে সেটিই যথেষ্ট। পেলে যে নিজের উত্তরসূরি, অর্থাৎ সম্ভাব্য ‘নতুন পেলে’ হিসেবে নিজ হাতেই বেছে নিয়েছেন এমবাপ্পেকে! ‘আমার মনে হয় ও নতুন পেলে হতে পারে’-ফ্রান্সের টিভি চ্যানেল কানাল প্লাসে বলেছেন তিনটি বিশ্বকাপজয়ী ব্রাজিল কিংবদন্তি।
গত কয়েক দিনে তো সময়ের সেরা ফুটবলারদের সমালোচনা করেই শুধু শিরোনামে এসেছেন পেলে। লিওনেল মেসি তাঁর চোখে ‘একটাই স্কিলসম্পন্ন (ড্রিবলিং) খেলোয়াড়’, স্বদেশি নেইমারকে পিতৃস্নেহে বকাঝকা করেছেন ‘অভিনয়ে’র জন্য। এমবাপ্পেই যা ব্যতিক্রম, পেলের প্রশংসা পেয়েছেন তিনি।
সে অবশ্য রাশিয়া বিশ্বকাপ থেকেই পেয়ে আসছেন। কখনো মজা করে নিজেই আবার মাঠে নেমে এমবাপ্পের সঙ্গে ‘প্রতিদ্বন্দ্বিতা’র কথা বলেছেন ৭৭ বছর বয়সী পেলে, তো কখনো তাঁর মুখে এমবাপ্পেকে নিয়ে মুগ্ধতা। বিশ্বকাপে পেলের কিছু কীর্তিও ছুঁয়েছেন এমবাপ্পে। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে শেষ ষোলোয় দুই গোল করে হয়েছেন পেলের পর নকআউট পর্বে এক ম্যাচে দুই গোল করা টিনএজ (১৩ থেকে ১৯ বছর) খেলোয়াড়। ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ফাইনালে তাঁর গোলও ১৯৫৮ বিশ্বকাপ ফাইনালে পেলের পর একটি ফাইনালে কোনো টিনএজ খেলোয়াড়ের প্রথম। পেলে তখন মজা করে টুইট করেছিলেন, ‘কিলিয়ান যদি এভাবে আমার একের পর এক রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলতে শুরু করে, তাহলে আমাকে হয়তো আবার বুটজোড়া ধুলো ঝেড়ে নামতে হবে!’
কানাল প্লাসে এমবাপ্পেকে নতুন করে প্রশংসা করার মধ্যে বিশ্বকাপ সাফল্যই টেনে এনেছেন পেলে, ‘গত বছরই এমবাপ্পের অনেক প্রশংসা করেছি আমি। ও ১৯ বছর বয়সে বিশ্বকাপ জিতেছে। প্রথমবার জেতার সময় আমার বয়স ছিল ১৭।’ তারপরই এমবাপ্পেকে ‘নতুন পেলে’ হিসেবে বেছে নেওয়া এবং সেটি মোটেও মজা করে বলেননি, ‘ওকে আমি বলেছি, কীর্তিতে আমাকে ছুঁতে পারে। আমার মনে হয়, ও নতুন পেলে হতে পারে। অনেকেই ভাবে, আমি সেটা মজা করে বলছি। কিন্তু না, আমি মজা করছি না।’
এমবাপ্পের ক্লাব পিএসজিতে তাঁর স্বদেশি নেইমারও আছেন, ফরাসি একটা টিভিতে কথা বলার সময় স্বাভাবিকভাবেই পেলের কথায় ওঠে পিএসজি প্রসঙ্গও। ব্রাজিল ও ফ্রান্সের দুই প্রাণভোমরাকে বিশ্বের সবচেয়ে দামি দুই খেলোয়াড় বানিয়ে কাতারি অর্থ ধন্য পিএসজির নিয়ে আসার লক্ষ্য তো একটাই-চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়। গত মৌসুমে সেটি হয়নি, রিয়াল মাদ্রিদের কাছে হেরে শেষ ষোলোতেই বাদ পড়ে যায় পিএসজি। এবার কোচ বদলে টমাস টুখেলকে নিয়ে এসেছে, গ্রুপ পর্ব পেরিয়ে শেষ ষোলোতে এবার প্রতিপক্ষ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। সে বাধা পেরিয়ে এবার শেষ পর্যন্ত যেতে পারবে পিএসজি?
পেলের আশার তার উঁচুতেই বাঁধা, ‘পিএসজি অসাধারণ একটা দল। আশা করি, ওরা দারুণ ফুটবল খেলবে, চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে যাবে। শিরোপা জিতবে কি না, সে তো শুধু ঈশ্বরই জানেন।’

সংসদ নির্বাচনের মাঠে ফুটবলাররা

অনলাইন ডেস্ক ঃ মাশরাফি বিন মুর্তজা মনোনায়ন ফরম কিনে হইচই ফেলে দিয়েছেন। নির্বাচন করবেন দেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমানও। তবে নির্বাচনী দৌড়ে কিন্তু পিছিয়ে নেই সাবেক তারকা ফুটবলাররাও। সালাম মুর্শেদী, শফিউল আরেফিন টুটুল, খুরশিদ আলম বাবুল ও আমিনুল হকরাও লড়বেন সংসদে যাওয়ার জন্য

সংসদ নির্বাচন খুব কাছেই। ঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী আগামী ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ভোট গ্রহণ। নির্বাচনের উত্তাপটা টের পাওয়া যাচ্ছে। গতকাল আওয়ামী লীগের পক্ষে নড়াইলের একটি আসন থেকে মনোনয়ন ফরম কিনে সেই উত্তাপকে অন্য মাত্রা দিয়েছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। গত নির্বাচনেই সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্ট অধিনায়ক নাঈমুর রহমান। মানিকগঞ্জ-১ আসন থেকে নাঈমুর এবারও নির্বাচন করবেন বলে জানা গেছে।

নির্বাচনের মাঠে পিছিয়ে থাকছেন না ফুটবলাররাও। সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন পাঁচ সাবেক তারকা ফুটবলার—আব্দুস সালাম মুর্শেদী, দেওয়ান শফিউল আরেফিন টুটুল, খুরশিদ আলম বাবুল, আরিফ খান জয় ও আমিনুল হক। তাঁদের মধ্যে আমিনুল ছাড়া বাকি সবাই আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে ফেলেছেন। জাতীয় দলের সাবেক গোলরক্ষক আমিনুল নির্বাচন করবেন বিএনপির হয়ে।
সালাম মুর্শেদী সাংসদ হয়ে আছেন। কিছুদিন আগেই খুলনা-৪ আসনের (রূপসা-তেরখাদা-দিঘলিয়া) উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। এবার ওই আসন থেকে নির্বাচন করার জন্য ৯ নভেম্বর মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে ১২ নভেম্বর জমা দিয়েছেন বলে জানালেন তাঁর সমন্বয়কারী শাহীনা আক্তার। শফিউল আরেফিন টুটুল মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন মানিকগঞ্জ-২ আসন থেকে, ‘গতকালই আমি মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছি মানিকগঞ্জ-২ আসন থেকে।’ এর আগে ২০০১ সালের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হয়েছিলেন টুটুল। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের হয়ে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন আবাহনী ও মোহামেডানের একসময়কার তারকা মিডফিল্ডার খুরশিদ আলম বাবুল। তিনি নির্বাচন করতে চান টাঙ্গাইল-৬ আসন থেকে।
বর্তমান ক্রীড়া উপমন্ত্রী ও জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক আরিফ খান জয়ের প্রস্তুতিও শেষের দিকে। তিনি আজ নেত্রকোনা-২ (সদর) আসন থেকে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন বলে জানিয়েছেন তাঁর ভাই, সাবেক ফুটবলার অমিত খান শুভ্র।
জয়ের জাতীয় দলের সতীর্থ আমিনুল বিএনপির হয়ে নির্বাচন করতে চান ঢাকা-১৬ আসন থেকে। সূত্র জানিয়েছে, জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক আগামীকাল এই আসনের  দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনবেন। বর্তমানে বিএনপির যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।
ফুটবল অঙ্গনের আরেক বড় নাম মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন একাধিকবার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন। সাবেক বিএনপি সরকারের মন্ত্রী হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ও সামলেছেন তিনি। বর্তমানে বিএনপির সহসভাপতি মেজর হাফিজ বরাবরের মতো এবারও নির্বাচন করবেন ভোলার আসন থেকে।

সাকিব আল হাসান বলেন, নির্বাচন করব না।

অনলাইন দেস্কঃ   আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নেওয়ার ব্যাপারে নিজের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। আগামীকাল রোববার তাঁর দলীয় মনোনয়নপত্র কেনার কথা ছিল।

এর আগে সাকিব নিজেই আজ প্রথম আলোর এই প্রতিবেদককে তাঁর নির্বাচন করার আগ্রহের কথা জানিয়ে বলেছিলেন, তিনি মাগুরা-১ আসনের জন্য তাঁর মনোনয়নপত্র জমা দেবেন।

সাকিব আল হাসান শনিবার রাতে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছি। নির্বাচন করব না।’ আগে নির্বাচন করার কথা জানিয়ে এখন কেন সিদ্ধান্ত পরিবর্তন—এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সাকিব আল হাসান কোনো মন্তব্য করেননি।

নড়াইল থেকে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজারও আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন করার কথা শোনা যাচ্ছে। গুঞ্জন রয়েছে, তিনিও আগামীকাল সকালে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবেন।
মাশরাফির পক্ষ থেকে এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করা না হলেও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, সাকিব-মাশরাফি দুজনই রোববার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করবেন।

এর আগে চলতি বছরের ২৯ মে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা ও সাকিব আল হাসানের নির্বাচন করার বিষয়ে আভাস দিয়েছিলেন। পরদিন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, ‘আগামী বিশ্বকাপের আগে সাকিব ও মাশরাফি রাজনীতিতে সক্রিয় হবেন না।’

এশিয়া কাপ জিততে মরিয়া বাংলাদেশ

অনলাইন ডেক্স: এশিয়া কাপের প্রস্তুতি শুরু করেছে বাংলাদেশ দল। এশীয় শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে দলের ভাবনা কী, সেটা আজ জানালেন দলের তরুণ পেসার আবু জায়েদ।

ফিটনেস আর ফিল্ডিং সেশন দিয়ে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ দলের এশিয়া কাপের প্রস্তুতি, যেমন হয় বরাবর। বিপ টেস্টের ফলটাও খারাপ নয়। যেখানে সবচেয়ে ভালো বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন (১২.৬), রুবেল হোসেন সবার চেয়ে নিচে থাকলেও স্কোর ১০-এর ওপর। ঘাম ঝরানোর আগে ড্রেসিংরুমে সতীর্থদের সঙ্গে বসেছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

সতীর্থদের একটিই বার্তা দিয়েছেন মাশরাফি। বার্তাটা কী সেটি এশিয়া কাপের অনুশীলন শুরুর দিনে জানালেন তরুণ পেসার আবু জায়েদ, ‘যদি পরিকল্পনা জানতে চান, তাহলে বলব আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে চাই। ড্রেসিংরুমে একটা মিটিং হয়েছে আমাদের। মাশরাফি ভাই বলেছেন, আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে পারি, সবার মধ্যে এই বিশ্বাসটা রাখতে। শুধুই অংশগ্রহণ করার জন্য যাচ্ছি না আমরা।’

সদ্য শেষ হওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে সাদা পোশাকের ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছে আবু জায়েদের। বাংলাদেশি পেসারদের মধ্যে সেরা পারফরম্যান্সটাও (২ টেস্টে ৭ উইকেট) তাঁরই। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেই প্রথমবার (ওয়ানডে সিরিজে) মাশরাফির সান্নিধ্য পেয়েছেন ড্রেসিংরুমে। দুই টেস্টের সিরিজে ভরাডুবির পর রঙিন পোশাকে ঘুরে দাঁড়ানো বাংলাদেশকে দেখেছেন দলের অংশ হয়েই। ওয়ানডে অধিনায়কের প্রতি জায়েদের মুগ্ধতার যেন শেষ নেই, ‘উনি আমাদের বিশ্বাস দিয়েছিলেন যে, “তোরা যদি বিশ্বাস রাখিস তাহলে তোরা পারবি।” আর আমরা সেটা পেরেছি।’

আবু জায়েদের স্মৃতিতে গায়ানার ড্রেসিংরুমের স্মৃতিটা বেশ সতেজ। ওয়ানডেতে এখনো অভিষেক হয়নি, তবে এশিয়া কাপের মঞ্চেও অভিষেক হবে না সেটি তো নয়। জায়েদের চোখে তাই ওয়ানডে অভিষেকের স্বপ্ন, ‘আমি ওয়ানডের জন্য চেষ্টা করছি, যেহেতু আমি তিনটি ওয়ানডেই এবার দেখেছি, আশা করি পারব।’

পাকিস্তানকে কোনভাবেই দুর্বল ভাবে না বাংলাদেশের মেয়েরা

আজ পাকিস্তানের মুখোমুখি বাংলাদেশের মেয়েরা।

 

গত ডিসেম্বরে সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে প্রতিপক্ষদের রীতিমতো উড়িয়ে দিয়ে শিরোপা জিতেছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। আট মাস পর ভুটানে একই প্রতিযোগিতায় আজ তারা মাঠে নামছে নবাগত পাকিস্তানের বিপক্ষে। মেয়েরা কি পারবে ডিসেম্বর মাসটাকে ফিরিয়ে আনতে?

পাহাড়ের খাঁজে খাঁজে পেজা তুলোর মতো সারাক্ষণ মেঘ উড়ছে। সকালের কুয়াশা সরিয়ে বেশ ঝলমলে রোদই উঠেছে থিম্পুর আকাশে। রাজধানী শহরে অফিসের কর্মব্যস্ততা ঠিকই আছে। কিন্তু রাস্তায় কোনো কোলাহল নেই। এমন শান্ত পরিবেশেই আজ সকালে হাঁটতে বেরিয়েছিল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৫ দলের মেয়েরা। সকালের নাশতাটা সেরে টিম হোটেলের আশপাশেই হালকা হাঁটাহাঁটি, আর নিজেদের মধ্যে খোশগল্পে মেতে ওঠা। পাহাড়ের শহরে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই দিন কাটছে বাংলাদেশ দলের। এমন নির্ভার হয়েই সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে আজ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে শিরোপা ধরে রাখার অভিযানে বাংলাদেশের প্রথম প্রতিপক্ষ পাকিস্তানের। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হবে খেলা।

বয়সভিত্তিক বিভিন্ন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে গত কয়েক বছর ধরেই শ্রেষ্ঠত্ব দেখিয়ে চলেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। অর্জনটা একদিনে হয়নি। ২০১৪ সালে নেপালে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়নশিপ দিয়ে শুরু। এরপর তাজিকিস্তানে একই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন, ঢাকায় এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ বাছাইপর্বেও সেরা। এরপর গত বছর ঢাকায় সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ টুর্নামেন্টের পর এপ্রিলে হংকংয়ে চার জাতি জকি কাপেও হয়েছে চ্যাম্পিয়ন। সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে ভুটানেও ভীষণ আত্মবিশ্বাসী এই বাংলাদেশ।

টুর্নামেন্টের ফেবারিট বাংলাদেশের সামনে পাকিস্তান কোনো বাধা হওয়ার কথা নয়। সাফের টুর্নামেন্ট উপলক্ষে এই পাকিস্তান দল মাত্র এক মাস অনুশীলন করেছে লাহোরে। ফিফার নিষেধাজ্ঞা থাকায় গত তিন বছর কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টেই অংশ নিতে পারেনি পাকিস্তান। মার্চে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর পাকিস্তান ফুটবল ফেডারেশন পুরুষ দলের পাশাপাশি নজর দিয়েছে মহিলা দলের দিকেও। অভিজ্ঞ কোচ মোহাম্মদ রশিদের হাতে হঠাৎ করেই তুলে দেওয়া হয়েছে একঝাঁক অনভিজ্ঞ কিশোরী। গত জুলাইয়ে জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৫ চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেওয়া ১২ দলের মধ্যে থেকে বেছে নেওয়া ২৩ জন খেলতে এসেছে ভুটানে।

পাকিস্তান দলের দুর্বলতার জায়গাটা ভালোই জানা গোলাম রব্বানী ছোটনের। তারপরও একচুল ছাড় দিতে রাজি নন তিনি, ‘হংকংয়ে মেয়েরা চার জাতি টুর্নামেন্টে যেভাবে ম্যাচপ্রতি ৮-১০ গোল দিয়েছে, এখানেও ঠিক সেভাবেই খেলবে।’ মেয়েদের ফুটবলে পাকিস্তানের সঙ্গে শতভাগ সাফল্য বাংলাদেশের। ঢাকায় ২০১০ এসএ গেমসে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল ২-০ গোলে হারায় পাকিস্তানকে। একই বছর মেয়েদের প্রথম সাফে কক্সবাজারেও বাংলাদেশ জেতে ২-০ গোলে। প্রতিপক্ষ দুর্বল পাকিস্তান বলেই কিনা, জয়রথের চাকাটা এবারও সামনের দিকেই এগিয়ে নিতে চায় মারিয়া মান্দারা।

যদিও এসব নিয়ে মোটেও মাথা ঘামাচ্ছে না মেয়েরা। সবার মনের মধ্যে একটা শব্দই ঘুরছে—জয়। আজ সকালে সবার হয়ে প্রথম আলোকে যেন সেই কথাটাই বলে দিল মনিকা চাকমা, ‘আজ আমরা জেতার জন্যই মাঠে যাব। পাকিস্তান সম্পর্কে যদিও তেমন কিছু জানি না। তবে কোনো প্রতিপক্ষকেই দুর্বল ভাবি না আমরা। নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটাই খেলব। সেরাটা উজাড় করে জিতে টুর্নামেন্ট শুরু করতে চাই।’

ঢাকায় বয়সভিত্তিক সাফের প্রথম আসরেও শুরুটা দুর্দান্ত হয়েছিল বাংলাদেশের। গত বছর নেপালকে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত করে টুর্নামেন্ট শুরু করেছিল বাংলাদেশ। আজও কি গত আসরের পুনরাবৃত্তি করতে পারবে মারিয়ারা?

Photo Gallery

সম্পাদক ও প্রকাশকঃ সাহিদুর রহমান,অফিসঃ ২২/১, তোপখানা রোড (৫ম তলা) বাংলাদেশ সচিবালয়ের উত্তর পার্শ্বে, ঢাকা-১০০০।
অফিস সেল ফোনঃ ০১৬১১-৯২০ ৮৫০, ই-মেইলঃ shiromoni67@gmail.com ,ওয়েবঃ www. Shiromoni.com

Social Widgets powered by AB-WebLog.com.