সৃজিত মিথিলার প্রেম,হিন্দু মুসলমানের প্রেম

‘সৃজিতকে জানি তাঁর ছবি দেখে। মিথিলা সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। কাল ফেসবুকে দুজনের বিয়ের খবর পড়ার পর মিথিলা কে সে তথ্য গুগল করে পেয়েছি। ব্যাপারটা চমৎকার। এই প্রেমটা। সৃজিত মিথিলার প্রেম। হিন্দু মুসলমানের প্রেম। শুধু প্রেমই নয়, বিয়েও। পুব আর পশ্চিমের মিলন। এসব যত বেশি ঘটবে, তত উড়বে ধর্ম, ঘুচবে সংস্কার, ছিঁড়বে কাঁটাতার, মরবে বিদ্বেষ।’- সৃজিত-মিথিলার বিয়ে প্রসঙ্গে ফেসবুক পেইজে কথাগুলো লিখেছেন নির্বাসিত কথাসাহিত্যিক তসলিমা নাসরিন।

উইকিপিডিয়ায় জয়ার বয়স ৪৭,জয়ার দাবি ৩৭ বছর

এই মুহূর্তে বাংলা সিনেমার অন্যতম জনপ্রিয় এক অভিনেত্রীর নাম জয়া আহসান।  সেটা কেবল ঢালিউডে তা কিন্তু নয়, টলিউডেও যে তিনি তুমুল জনপ্রিয় তা যে কেউ স্বীকার করবেন। অভিনয়ের দক্ষতা নিয়ে  কোনো সংশয় না থাকলেও জয়ার বয়স নিয়ে কিছুটা দ্বিধাদ্বন্দ্ব রয়েছে ভক্তদের মাঝে। উইকিপিডিয়ার তথ্য মতে, জয়ার বয়স এখন ৪৭ বছর ৪ মাস। কিন্তু এ নায়িকার দাবি, এ তথ্য সঠিক নয়। ‘জয়ার বয়স নাকি ৩৭ বছরের এক দিনও বেশি নয়’, ভারতের জনপ্রিয় বাংলা গণমাধ্যম আনন্দবাজারের কাছে জয়া এমনটাই দাবি করেছেন।  সেখানে তিনি জানান, বয়স নিয়ে উইকিপিডিয়ার তথ্য ভুল। প্রতিবেদনে বলা হয়, সর্বত্রই দেখা যায় তারকাদের উত্থান কুড়ির কোঠায়। বয়সের সঙ্গে সঙ্গে তাদের প্রমোশন হয়েছে তন্বী কিশোরী থেকে মা-মাসির চরিত্রে। তবে জয়া ব্যতিক্রম! যা এতদিন অভাবনীয় ছিল এবার তাই হয়েছে। ৪৭ বা ৩৭ বছর যাই হোক না কেন এ মুহূর্তে বাংলার সবচেয়ে কাক্সিক্ষত মুখ জয়া আহসানই।

জয়ার জন্য ধর্মান্তরিত হতে চেয়েছিলেন সৃজিত!

কলকাতার জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতা সৃজিত মুখার্জি দিন কয়েক হলো বিয়ে করেছেন বাংলাদেশি অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলাকে। তবে বিয়ের আগে সৃজিতের একাধিক প্রেমের কাহিনী শোনা যায়। জানা গেছে ৪২ বছর বয়সি এ পরিচালক একবার নাকি বিয়েও করেছিলেন। তবে সে বিয়ে টেকেনি বলে শোনা গেছে। এদিকে মিথিলাকে বিয়ের আগে দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসানের সঙ্গেও সৃজিতের প্রেমের গুঞ্জন উঠেছিল। মঙ্গলবার কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা জয়া আহসানকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে বলা হয়েছে, সৃজিতের সঙ্গে জয়ার প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে টলিউডে একসময় গুঞ্জন উঠেছিল। শোনা যায়, সৃজিত নাকি জয়ার জন্য ধর্মান্তরিতও হতে চেয়েছিলেন! জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান হুট করেই কলকাতায় ছবিতে অভিনয় শুরু করেন।

২০১৫ সালে কলকাতার ‘রাজকাহিনি’ ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। আর এ ছবির নির্মাতা ছিলেন সৃজিত। ছবি করতে গিয়েই জয়ার সঙ্গে সৃজিতের প্রেমের গুঞ্জন ওঠে। তবে বিষয়টি নিয়ে জয়া প্রথমে নীরব থাকলেও পরে গুঞ্জন নাকচ করে দেন।

সৌদিতে চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের ‘জয়যাত্রা’

রং তুলির রং নয় !

জে আই সমাপ্ত : রং তুলির ছোঁয়ায় সাজিয়ে তোলা হয়নি; এতো রংতুলির রং নয়! রাস্তায় পরে থাকা ইটের টুকরো, কয়লা আর সাদা চক দিয়ে সাজিয়ে তোলা হয়েছে। কারও সাথে কোন প্রকার কথা না বলেই মনের মত নকশা করে নানা রকম উপদেশ মূলক কথা লিখেই চলছে তৃতীয় লিঙ্গের এ মানুষটি তার ব্যতিক্রম প্রতিভার মধ্যদিয়ে।

এই মানুষটির সাথে অনেকেই কথা বলার চেষ্টা করলেও তার মুখ থেকে একটিও কথা শুনতে পারেন নি কেউই। তবে তার কাছে যদি কারো কোন প্রশ্ন থাকে আর তা যদি কাগজে লিখে দেয়া হয় তবেই উত্তর মেলে। তার ঠিকানা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ইটের টুকরো, কয়লা আর সাদা চক দিয়ে তৈরী নকশার মাঝে লিখে দেন- “বাড়ী ছিল মোড়ল গঞ্জ, বিশাল এক নদীর কুলে, জেলা বাগেরহাট। বসত বাড়ী সয়, সম্পত্তি সব খেয়ে নিয়েছে, নিষ্ঠুর নদীতে।”

একাধিকবার প্রশ্ন করার মধ্যদিয়ে জানা যায়, তিনি ১৯৯০ খ্রিষ্টাব্দে ম্যাট্রিক পাশ করেন। তৃতীয় লিঙ্গের একজন মানুষ। বর্তমান তার এ পৃথিবীতে আপন বলতে কেউ নেই তিনি একা আর বর্তমান জীবন ঠিকানা বিহীন। আজ এ জেলায় কাল অন্য আর এক জেলায়। এভাবে যেখানে মন চায় সেখানেই তিনি অবস্থান নেন এবং তার ব্যতিক্রম প্রতিভার মধ্যদিয়ে মানুষকে নানা রকম কথা জানান- ‘জগতের সব মানুষ সমান না, সব মানুষও মানুষ না’।

Photo Gallery

সম্পাদক ও প্রকাশক : সাহিদুর রহমান, অফিস : ৪৫, তোপখানা রোড (নীচতলা)পল্টন মোড়, ট্রপিকানা টাওয়ার, ঢাকা-১০০০।
অফিস সেল ফোন : ০১৯১১-৭৩৫৫৩৩। ই-মেইল : shiromonimedia@gmail.com,ওয়েব : www.shiromoni.com

Social Widgets powered by AB-WebLog.com.