নেহা কক্করের থাপ্পড় খেয়ে শুরু হলো নাচ

শিরোমনি ডেস্ক: সম্প্রতি প্রকাশ হয়েছে বলিউডের জনপ্রিয় গায়িকা নেহা কক্করের নতুন গানের ভিডিও ‘গোয়া বিচ’। ঘটনাটি ঘটেছে এই গানের তালে নাচতে গিয়ে। পরিচিত এক টিকটক স্টারের গালে থাপ্পড় দিয়ে হঠাৎ করেই ভাইরাল হয়েছেন নেহা কক্কর ও তার ভাই টনি কক্কর।

বিষয়টা খুলেই বলা যাক। এক পার্টির মধ্যেই হঠাৎ করে টিকটক স্টার রিয়াজকে কষে থাপ্পড় মারেন নেহা। ভিডিটিতে দেখা যাচ্ছে এই গায়িকার থাপ্পড় খেয়ে নাচতে শুরু করেন রিয়াজ। না শুধু রিয়াজ একা নন তার সঙ্গে নাচতে থাকেন নেহা ও টনি।

তবে পার্টিতে কাউকেউ রেগে উঠতে দেখা যায়নি। কারণ আর কিছু নয় মজার ছলেই থাপ্পড়টি দিয়েছিলেন নেহা। আর এই ঘটনার পরেই সবাইকে হেসে উঠতেও দেখা যায়।

এদিকে গুঞ্জন ছড়িয়েছে শিগগিরই গায়িকা থেকে নায়িকা হতে চলেছেন নেহা কক্কর। এই বিষয়ে এক গণমাধ্যমকে নেহা জানান, যদি তাকে দিয়ে কেউ অভিনয় করাতে চান, তাহলে প্রথমে নিশ্চিত করতে হবে সেই সিনেমা বক্স অফিসে ভাল ব্যবসা করতে পারবে কি না।

নেহা এও বলেন, ‘এখন পর্যন্ত কোনো গায়ক গায়িকা গান থেকে অভিনয়ে নাম লিখিয়ে সফল হতে পারেন নি।’

করোনা আতঙ্কে সব শুটিং বন্ধ

শিরোমনি ডেস্ক: চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয় গত বছরের ডিসেম্বরে। বর্তমানে বিশ্বের অন্তত ১২৫টি দেশ ও অঞ্চলে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা সাড়ে পাঁচ হাজার ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে ভারতেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৩ জন।

নতুন খবর হলো করোনা থেকে বাঁচতে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত সমস্ত সিনেমা ও টিভি ধারাবাহিকের শ্যুটিং বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের মুম্বাইয়ের ফিল্ম এবং টেলিভিশন সংগঠন। সরকারি নির্দেশিকা মেনেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, ইন্ডিয়ান মোশন পিকচার্স প্রডিউসর অ্যাসোসিয়েশন, ফেডারেশন অফ ওয়েস্টার্ন ইন্ডিয়া সিনে এমপ্লয়ীজ, ইন্ডিয়ান ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ডিরেক্টর্স অ্যাসোসিয়েশন শুটিং বাতিলের বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রোববার এই সংগঠনগুলো এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয় আগামী ১৯ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বলিউডে সব শুটিং বন্ধ রাখা হবে।

তবে ৩১ মার্চ এর পর সিনেমা ও ধারাবাহিকগুলোর আবারও শুটিং শুরু করতে পারবে কী না এই বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি এখনো। আপাতত ধারাবহিক নাটকগুলোর পূর্বে শুটিং করা পর্বগুলো দেখতে হবে দর্শকদের।

ঘর-সংসার সামলানো শুধু নারীদের কাজ নয় : কাজল

শিরোমনি ডেস্ক: বলিউডের সুপারস্টার কাজল। নব্বই দশক মাতানো এই অভিনেত্রী গেল কয়েক বছর ধরে খুব একটা নিয়মিত নন সিনেমায়। তবে মাঝেমধ্যেই হাজির হয়ে চমকে দেন। সর্বশেষ ‘তানাজি’ সিনেমায় অজয় দেবগণের বিপরীতে অভিনয় করে প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। তার সেই ছবি ব্যবসা করেছে ৩০০ কোটিরও বেশি।

সম্প্রতি তিনি ‘দেবী’ নামের একটি শর্টফিল্মে কাজ করেছেন। সেটি বেশ প্রশংসিত হয়েছে সবখানে। সেটি নিয়ে একটি সাক্ষাতকারে মুখ খুলেছেন কাজল।

স্পটবয় ই-কে দেয়া সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ‘ঘর-সংসার সামলানো শুধু নারীদের কাজ নয়। আবার নারীরাই শুধু বাড়িতে রোজগার করে আনবে তেমনটাও নয়।’

নারীদের ক্ষমতায়ন প্রসঙ্গে মুখ খুলতে গিয়ে অভিনেত্রী আরও বলেন, ‘ক্ষমতায়ন বিষয়টা নিজের মধ্যে থেকেই আসে। আপনি কোনো পুরুষের কাছে নিজের ক্ষমতায়নের আর্জি করতে পারেন না। আপনাকে নিজেকেই এটা অর্জন করতে হবে। পরিবারে তাদের কোনো ভূমিকা নেই এই ভাবনাটা ভাবা নারীদেরকেই বন্ধ করতে হবে। আমরা এই সমাজে একেবারেই পরজীবী সদস্য নই।’

কাজল বলেন, ‘এই নারী-পুরুষের পার্থক্য না করার শিক্ষাটা আমাদের সন্তানদের থেকেই শুরু করা উচিত। যেমন প্রথমে আমি আমার ছেলেকে শেখাবো যে তার মাকেও কাজের জন্য বাইরে যেতে হয়। যাতে পরবর্তীকালে ও যখন বড় হবে, তখন ওর স্ত্রীকেও ওই একইভাবে দেখতে ওর কোনো সমস্যা হবে না। ও যেন ছোট থেকেই বুঝতে শেখে যে এটাই স্বাভাবিক। আর তাতে ওর মনের মধ্যে কোনো বাধা-নিষেধ তৈরি হবে না।’

করোনা ভাইরাসকে পাত্তা দিচ্ছেন না তারা

শিরোমনি অনলাইন ডেস্ক: গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়। বর্তমানে বিশ্বের অন্তত ১২৫টি দেশ ও অঞ্চলে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৪৫৬ জনে। এর মধ্যে ভারতেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৩ জন।

করোনা আতঙ্কের প্রভাব পড়েছে বলিউডেও। শাহিদ কাপুর, রণবীর কাপুর, আলিয়া সহবলিউডের অনেক তারকা তাদের শুটিং বাতিল করেছেন এরই মধ্যে। করোনার জন্য বিদেশ সফর বাতিল করেছেন দীপিকা পাড়ুকোন, সালমান খান, হৃত্বিক রোশনসহ আরও অনেকেই।

তবে ব্যতিক্রক ঘটনাও ঘটছে। করোনা ভাইরাসকে পাত্তা না দিয়ে শুটিং চালিয়ে যাচ্ছেন জন আব্রাহাম, বিদ্যা বালান, ভূমি পেডনেকরের মত অনেক তারকা।

ভারতীয় এক গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যা বালান বর্তমানে ‘শেরনি’ সিনেমার শুটিং করছেন। ভূমি পেডনেকর করছেন ‘দূর্গাবতী’ সিনেমার শুটিং। জন আব্রহামও তার আগামী সিনেমা ‘মুম্বাই সাগা’ সিনেমার শুটিং করছেন।

প্রযোজক বিক্রম মালহোত্রা বলেন,‘আমরা পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী শুটিং করছি। যতটা সাবধানতা অবলম্বন করা যায়, আমাদের টিমের সদস্যরা ততটা সাবধানতা নেওয়ার চেষ্টা করছেন। মাস্ক, স্যানিটাইজার সবই ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়াও শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এমন খাবারই সকলে খাচ্ছে। শুটিং সেটে একজন চিকিৎসকও রয়েছে।’

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য ছবি আহ্বান

শিরোমনি অনলাইন ডেস্ক: জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ এর জন্য আবেদনপত্র আহ্বান করেছে তথ্য মন্ত্রণালয়। চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান ও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রদান কমিটির জুরি বোর্ডের সদস্য সচিব নিজামুল কবীর স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এই আহ্বান জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড অফিস ও ওয়েবসাইট থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ এর আবেদনপত্র সংগ্রহ করে ৫ই এপ্রিলের মধ্যে জমা দিতে হবে। এতে সিনেমার উন্নতমানের প্রিন্টের ডিভিডি জমা দেওয়রার কথা উল্লেখ করা হয়।

আগ্রহীদের তথ্য মন্ত্রণালয়ের ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এবছরেও ২৮টি বিভাগে পুরস্কার দেয়া হবে। চলচ্চিত্র জমা দেয়ার আগে বেশ কিছু শর্ত মানতে হবে।

সেগুলো হচ্ছে :

(ক) কেবল বাংলাদেশি নাগরিকরাই এই পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবেন।

(খ) আজীবন সম্মাননার জন্য জীবিত ব্যক্তিদেরকে বিবেচনা করা হবে।

(গ) যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্র জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে। তবে সেই সিনেমায় বিদেশি শিল্পী-কলাকুশলীরা পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবেন না।

(ঘ) পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমার জন্য অবশ্যই ছবিটিকে  সেন্সর সনদ পেতে হবে এবং বিবেচ্য বছরে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে হবে। স্বল্পদৈর্ঘ্য এবং প্রামাণ্যচিত্রের জন্য প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শনের বাধ্যবাধকতা না থাকলেও বিবেচ্য বছরে সেন্সর সনদ পেতে হবে।

 

(ঙ) কাহিনীর ক্ষেত্রে দেশি বা বিদেশি লেখক/প্রকাশকের কপিরাইট বা অনুমতি নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে।

(চ) বিদেশি চলচ্চিত্রের কপিরাইট নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র এবং রিমেক চলচ্চিত্রের কাহিনী পুরস্কারে বিবেচিত হবে না।

পুরস্কার হিসেবে আঠার ক্যারেট মানের পনের গ্রাম স্বর্ণের একটি পদক, পদকের একটি রেপ্লিকা, একটি সম্মাননাপত্র দেওয়া হয়। আজীবন সম্মাননাপ্রাপ্তকে এক লাখ টাকা দেয়া হয়। শ্রেষ্ঠ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রযোজক ও শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রযোজককে ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়। এছাড়া শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রযোজক, শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালককে ৫০ হাজার টাকা ও অন্যান্য ক্ষেত্রে ত্রিশ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়।

Photo Gallery

সম্পাদক ও প্রকাশক : সাহিদুর রহমান, অফিস : ৪৫, তোপখানা রোড (নীচতলা)পল্টন মোড়, ট্রপিকানা টাওয়ার, ঢাকা-১০০০।
অফিস সেল ফোন : ০১৯১১-৭৩৫৫৩৩। ই-মেইল : shiromonimedia@gmail.com,ওয়েব : www.shiromoni.com