পাকিস্তান থেকে ইরানে হামলা নয়

অনলাইন ডেস্ক ঃঃ মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানে হামলা চালানোর ক্ষেত্রে শত্রুরা কখনোই পাকিস্তানের সীমা ব্যবহার করতে পারবে না বলে জানিয়েছেন পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি। তেহরানে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে বৈঠকে এ কথা বলেন তিনি। খবর ডন।

সোলাইমানি হত্যার জেরে মধ্যপ্রাচ্যে এখন অস্থিতিশীলতা বিরাজ করছে। একে অপরকে হুমকি-পাল্টা হুমকি দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান। এই উত্তেজনার মধ্যেই ইরান সফরে গেছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি। সফরের অংশ হিসেবে রোববার (১২ জানুয়ারি) ইরানের রাজধানী তেহরানে দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি।

বাংলাদেশ সীমান্তে ইসরায়েলের তৈরি কাঁটাতারের বেড়া

বাংলাদেশ সংলগ্ন সীমান্তে ইসরায়েলের তৈরি কাঁটাতারের বেড়া বসাতে যাচ্ছে ভারত। বসাবে পাকিস্তান সীমান্তেও। দুই সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে এবং নজরদারি নিশ্ছিদ্র করতে এই বিশেষ বেড়া বসানো হবে বলে জানিয়েছে দেশটির সীমান্ত বাহিনী বিএসএফ। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম পিটিআইকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বিএসএফ প্রধান দাবি করেছে, ইসরায়েলি এ বেড়ায় নিজস্ব ‘কুইক রেসপন্স টিম’ মেকানিজম রয়েছে; যা অনুপ্রবেশ হওয়ামাত্র স্বয়ংক্রিয়ভাবে সংকেত দেবে।

পিটিআই-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই বাংলাদেশ ও পাকিস্তান সীমান্তের সর্বত্র কাঁটাতারে মুড়ে ফেলতে উদ্যোগী হয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। নরেন্দ্র মোদি সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী, সীমান্তের নিরাপত্তা জোরদার করতে একটি বিশেষ প্রকল্প হাতে নিয়েছে বিএসএফ। এই প্রকল্পের নাম দেয়া হয়েছে কম্প্রিহেনসিভ ইন্টিগ্রেটেড বর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিআইবিএমএস)।

২৩০ কিলোমিটার দূর থেকে হামলা চালানো হয়

মেইলের খবরে বলা হয়, শুক্রবার ভোররাতে বিমানবন্দর লক্ষ্য করে অন্তত চারটি রকেট নিক্ষেপ করা হয়। বিমানবন্দরে দুটি গাড়ি লক্ষ্য করে রকেট হামলা চালানো হয়। মার্কিন হেলিকপ্টার থেকে রকেটগুলো ছোড়া হয়। দুটি গাড়ির একটিতে ছিলেন কাশেম সোলাইমানি। আকাশ থেকে মার্কিন ড্রোনের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতের সঙ্গে সঙ্গে ঘটে প্রবল বিস্ফোরণ। আর মুহূর্তেই ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় কাশেম সোলাইমানির। সোলাইমানির গাড়িতে ২৩০ কিলোমিটার দূর থেকে হামলা চালানো হয়।

মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন ড্রোন ‘এম কিউ-নাইন র‌িপার’-এ একবার জ্বালানি ভরলে প্রায় ১ হাজার ৮০০ কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত হামলা চলতে পারে। চালকবিহীন ‘এম কিউ-নাইন র‌িপার’ ড্রোনটির সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ৪৮২ কিলোমিটার পর্যন্ত। ড্রোনটিতে আছে অত্যাধুনিক ইনফ্রারেড ক্যামেরা। এই ক্যামেরায় রাতের বেলায়ও যুদ্ধক্ষেত্রের ছবি পরিষ্কার পাঠিয়ে দেওয়া যায় দূরের কোনো সামরিক ঘাঁটিতে বসে থাকা চালকের মনিটরে।

সামরিক বিশেষজ্ঞদের মতে, পুরো অপারেশনের শেষ পর্যায় ছিল মার্কিন বিমান বাহিনীর এই ড্রোন হামলা। এর আগে সোলাইমানির গতিবিধির ওপর কড়া নজর রাখা হচ্ছিল। আর নজরদারির এ কাজে ন্যস্ত ছিলেন মার্কিন ও ইসরায়েলের গোয়েন্দারা। গোয়েন্দারা কাশেম সোলাইমানির ফোনের কথোপকথনও শুনছিলেন। কাশেম সোলাইমানির ওপর নজরদারিটা এমন ছিল যে দরকার হলে ড্রোন উড়িয়ে সোলাইমানিকে ধাওয়া করা হতো। কিন্তু বিমানবন্দরের পাশেই চালানো হামলায় নিহত হন কাশেম সোলাইমানি।

মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সেনাদের তিনটি অপারেশনাল ড্রোন ঘাঁটি রয়েছে। কুয়েতের আলী আল সালেম, কাতারে উদেদ এয়ারবেস, সংযুক্ত আরব আমিরাতে আল দাফর। বাগদাদ বিমানবন্দরে কাছের মার্কিন ড্রোন ঘাঁটি কুয়েতে আলী আল সালেম। তবে সেখান থেকে বাগদাদের দূরত্ব ৫৭০ কিলোমিটার। অন্য দুটি ঘাঁটির দূরত্ব আরও বেশি। আগে থেকেই খবর না থাকলে আশপাশে হামলা চালানো কুয়েতের ঘাঁটি থেকে সম্ভব নয়। তাই সোলাইমানির সঙ্গেই ছায়ার মতো ছিলেন কোনো মার্কিন গোয়েন্দা। সিরিয়া বা লেবানন থেকে ইরানি কমান্ডার কাশেমকে নিয়ে বিমান ছাড়ার পরই তিনি সেই খবর পৌঁছে দেন মার্কিন সেনাদের কাছে। ফলে বাগদাদ বিমানবন্দরের আশপাশে ওত পেতে ছিল মার্কিন ড্রোন ‘এম কিউ-নাইন র‌িপার’। সোলাইমানি গাড়িতে ওঠার পরই দুটি গাড়ি লক্ষ্য করে চারটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়।

পুরো অপারেশনটি জটিল অঙ্কের মতো ধাপে ধাপে সমাধান করেছেন মার্কিন সেনাসদস্যরা। গোয়েন্দা খবর আর অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাহায্য ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডের অভিজাত কুদস বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল কাশেম সোলাইমানিসহ ১০ জনের ওপর হামলা চালানো হয়।

বিদেশি সেনারা ইরাকে থাকতে পারবে না

বিদেশি সেনাদের ফেরত পাঠানো সংক্রান্ত প্রস্তাব পাশ করেছে ইরাকের পার্লামেন্ট। ছবি: রয়টার্সবিদেশি সেনাদের ফেরত পাঠানো সংক্রান্ত প্রস্তাব পাশ করেছে ইরাকের পার্লামেন্ট। ছবি: রয়টার্সইরাকে মার্কিন কিংবা কোনো বিদেশি সেনা থাকতে পারবে না। আজ রোববার দেশটির পার্লামেন্টে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। রাজধানী বাগদাদে গত শুক্রবার মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানের কুদস ফোর্সের প্রধান কাশেম সোলাইমানি নিহত হওয়ার পর এই প্রস্তাব পাস করা হলো।

বিবিসির খবরে বলা হয়, পাস হওয়া প্রস্তাবে দেশটি থেকে সব বিদেশি সেনাকে ফিরিয়ে নিতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানানো হয়। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘনের আনুষ্ঠানিক অভিযোগ জাতিসংঘে তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইরাকি পার্লামেন্ট। ইরাকের আইনপ্রণেতারা মনে করেন, মার্কিন বাহিনী ইরাকে ঢুকে সোলাইমানিকে হত্যা করায় তাদের (ইরাক) সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘিত হয়েছে।

নরওয়ের পর্যটককে ভারত ছাড়ার নির্দেশ

Photo Gallery

সম্পাদক ও প্রকাশক : সাহিদুর রহমান, অফিস : ৪৫, তোপখানা রোড (নীচতলা)পল্টন মোড়, ট্রপিকানা টাওয়ার, ঢাকা-১০০০।
অফিস সেল ফোন : ০১৯১১-৭৩৫৫৩৩। ই-মেইল : shiromonimedia@gmail.com,ওয়েব : www.shiromoni.com

Social Widgets powered by AB-WebLog.com.